নষ্টদের একাংশ

—-কামরুজ্জামান

পদ্মার দুতীরে নষ্টদের হৈচৈ তাণ্ডবনৃত্য উৎসব,

গৃহপালিত বেজন্মার ঘেউঘেউ দানবী কলরব।

মরণ কামড়ে বিব্রত,ছোঁয়ালে বত্রিশ কুকুরেদাঁত ;

দুকূলে আনে চরিত্রহীন গদ্যের দীঘল ভয়াল রাত।

হাতুড়ি চালায় পেরেক বিধে পদ্মার কোমল বুকে,

চরিত্রহীনার উন্মাদনা কুলুপ এটে পদ্মার মুখে।

পদ্মার গতিপথ কালো বাধ করে – ওরা রোধে ;

দেদার দৌরাত্ম্য পদ্মা ও জননীর উর্বর বুকে – চলছে অবাধে।

স্বদেশের কোমল ঘাড় চেপে ধরে বারংবারে ;

নষ্টদের একাংশ আজ ব্যাপক সক্রিয় পদ্মার দু- তীরে!

নষ্টদের আধিপত্য, বেজন্মার দাপটতা, বর্ণচোরা ভূপতি, তেলবাজ দিচ্ছে নীতি,

রামদা হাতে আসে দুধের মাছি আর উজানের কৈ ;

এই পতাকার বিরোধী দল এখনো সক্রিয় ঐ।

পদ্মার দুতীরে নষ্টদের একাংশ আজ ব্যাপক সক্রিয় ঐ।

সবুজের সমারহে অসুর ইবলিশ চির উন্মমাদ,

দেশের ভাগ্য, দেশের ইজ্জতভ্রষ্ট, ওদের সাধ।

চরিত্রহীনার চরিত্রহীনতা আজ সীমানা পেরিয়ে,

বেজন্মার দাপটে স্বদেশের মাথা বিশ্বে পড়ে নুয়ে।

জংলী কুকুর, নষ্ট চলছে সচরাচর শিনা ফুলিয়ে,

পদ্মার উদ্যম গতি নষ্টদের বুকে যায় থেমে ;

ধরা পড়ে কতো শুয়োরছানা সময়ের ফ্রেমে।

নষ্টদের সুতীব্র চিৎকারে পদ্মাবাসী বধির বেহুশ ;

নষ্টদের একাংশ আজ ব্যাপক সক্রিয়,

চেপে ধরেছে পদ্মার ফুসফুস!

লেখকঃ কবি ও কলামিস্ট