ফিরোজ হোসেন, সাতক্ষীরা : সাতক্ষীরার দেবহাটা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব কুমার সাহার আপ্রান প্রচেষ্টায় ১৪ মাস আগে সিলেটের ওসমানিনগর থানার মোবারকপুর থেকে হারিয়ে যাওয়া বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী যুবক আমিনুল ইসলামকে (২৫) তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সে ওসমানিনগর থানার মোবারকপুর গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে। শনিবার সকাল ১০ টায় দেবহাটা থানা ভবনে তার বাবার কাছে আমিনুলকে হস্তান্তর করেন ওসি বিপ্লব কুমার সাহা।

এরআগে প্রায় এক বছর ধরে সাতক্ষীরাসহ বিভিন্ন জেলায় ঘুরে সপ্তাহ খানেক আগেই পাগলপ্রায় বেশে দেবহাটাতে পৌঁছায় আমিনুল। সেসময় থেকেই সে অবস্থান করছিলো সখিপুর মোড় ও আশপাশের এলাকায়।

মানুষের দেয়া খাবার খেয়ে রাস্তার পাশে কিংবা অন্যের দোকানের সামনে পড়ে থাকতো সে। গত বৃহষ্পতিবার আমিনুলের সন্ধান চেয়ে স্থানীয় সংবাদকর্মী নাজমুল হোসেন ফেসবুকে একটি পোষ্ট দিলে বিষয়টি নজরে আসে পুলিশের।

তাৎক্ষনিকভাবে দেবহাটা থানার ওসির নির্দেশে আমিনুলকে থানা হেফাজতে নেয় পুলিশ। পাশাপাশি ফেসবুকে জানা যায় আমিনুলের বাড়ীর ঠিকানা। এরপর থেকে আমিনুলকে তার পরিবারের কাছে ফেরত পাঠাতে দফায় দফায় ওসমানিনগর থানায় যোগাযোগ করেন দেবহাটা থানার ওসি বিপ্লব কুমার সাহা।

ওসমানিনগর থানা থেকে হারানো ছেলের খবর দিয়ে পুলিশ পাঠিয়ে খবর দেয়া হয় আমিনুলের বাড়ীতে। কিন্তু হতদরিদ্র হওয়ায় আর্থিক অস্বচ্ছল্যতার কারনে ছেলে নিতে দেবহাটা থানায় আসতেও বিপাকে পড়ে আমিনুলের বাবা।

একপর্যায়ে দেবহাটা উপজেলা সমাজসেবা অফিসারের সাথে আলোচনা করে আমিনুল ও তার বাবার যাতায়াতের খরচেরও ব্যবস্থা করেন ওসি। পাশাপাশি আমিনুলের পাশে দাড়ায় দেবহাটার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন মৃত্তিকা মানবিক ইউনিট। শুক্রবার সন্ধ্যায় ছেলেকে নিতে দেবহাটা পৌঁছায় আমিনুলের বাবা নুরুল ইসলাম।

শনিবার সকাল ১০ টায় আনুষ্ঠানিকভাবে আমিনুলকে তার বাবা নুরুল ইসলামের হাতে তুলে দেন দেবহাটা থানার ওসিসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দরা। দেয়া হয় তাদের যাতায়াত খরচ বাবদ তিন হাজার টাকা। এসময় আমিনুল ও তার বাবাকে ঈদের নতুন জামা কাপড় ও কিছু আর্থিক সহায়তা দেন মৃত্তিকা মানবিক ইউনিট। বহুদিন পর হারানো ছেলেকে ফিরে পেয়ে আনন্দে ভরে ওঠে নুরুল ইসলামের বুক। পাশাপাশি বাবাকে ফিরে পেয়ে হাসি ফোটে আমিনুলের মুখে।

আমিনুলের বাবা নুরুল ইসলাম জানান, আমিনুল ছিলো মেধাবী শিক্ষার্থী। সিলেটের একটি মাদরাসা থেকে আলিম পাশ করে আমিনুল। কিন্তু পারিবারিক অস্বচ্ছল্যতাসহ বিভিন্ন মানসিক দুঃচিন্তায় বুদ্ধি প্রতিবন্ধীর লক্ষন দেখা দিতে থাকে তার। বিগত প্রায় ১৪ মাস আগে বাড়ী থেকে বেরিয়ে পড়ে আমিনুল। সেখান থেকেই তাকে খুজছিল পরিবার। হারানো ছেলেকে ফিরে পেয়ে দেবহাটা থানার ওসি বিপ্লব কুমার সাহাসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান নুরুল ইসলাম।