বিশেষ প্রতিনিধি : বাংলাদেশ থেকে ভারতের চেন্নাই অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নেয়ার জন্য মেডিকেল ট্রাভেলারদের বিশেষ সেবা চালু করেছেন হাসপাতালটি।

হাসপাতালটির বিশেষ উদ্যোগে ভারত এবং বাংলাদেশে দায়িত্বরত প্রতিনিধি অফিস হেলথ কানেক্ট বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে চিকিৎসা সেবা প্রত্যাশী ভ্রমণকারীদের জন্য ঢাকা টু কলকাতা পর্যন্ত এই বিশেষ বাস পরিষেবা সার্ভিস চালু করা হয়েছে ।

এই বিশেষ বাস পরিষেবার সম্পর্কে ভালো নিউজ’কে হেলথ কানেক্ট ইন্টারন্যাশনালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিক আজম বলেন, এই ক্রান্তিকালীন সময়ে চিকিৎসা সেবা প্রত্যাশীদের আটকে পড়া খুবই বেদনাদায়ক, একান্তই যাঁদের প্রয়োজন তাঁদের কথা ভেবেই আমাদের এই উদ্যোগ। প্রণীত স্বাস্থ্যবিধি অনুসারে আসন সংখ্যা সীমিত রেখেছি, প্রতিটি যাত্রীর ফেসমাস্ক যথাযথ ভাবে পরিধান নিশ্চিত করা হয়েছে এই সেবার আওতায় । ঢাকা থেকে কলকাতা পর্যন্ত বিশেষ ভ্রমণ গাইড নিশ্চিত করা হয়েছে।

এছাড়াও আপনারা জেনে খুশি হবেন যে, আমাদের এমন এক রোগী ছিলেন যিনি এই অবস্থায় অ্যাপোলো হাসপাতাল চেন্নাইতে বোন ম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্টের জন্য গিয়েছিলেন। আমরা রোগীদের সন্তুষ্টি ও আস্থা অর্জন করতে যথারীতি সক্ষম হয়েছি। রোগীদের আস্থা রক্ষায় সকলের সম্মিলিত সহযোগিতায় ইহা একটি মহতী উদ্যোগ। আমরা বাংলাদেশ সরকার, ভারত সরকার এবং ভারত ও বাংলাদেশ উভয় দেশের চিকিৎসক দলসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞ, যাঁরা রোগীদের সহায়তা করার জন্য আমাদের সহযোগিতা ও সমর্থন করেছেন ।

এ সম্পর্কে অ্যাপোলো হাসপাতাল গ্রুফের চেয়ারম্যান ডাক্তার হরিপ্রসাদ বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাথে আমাদের সম্পর্ক খুবই মূল্যবান। আমরা এই অভূতপূর্ব সময়ে ঝামেলামুক্ত সেবা নিশ্চিত করণে এই বিশেষ বাস পরিষেবা চালু করার চিন্তাভাবনা করেছি। ভারতীয় হাই কমিশন ঢাকা, বাংলাদেশ হাই কমিশন মুম্বাই, আমাদের বাংলাদেশ প্রতিনিধি হেলথ কানেক্ট বাংলাদেশ ও দেশ ট্র্যাভেলসকে সহায়তার জন্য ধন্যবাদ।

আমরা বাংলাদেশে আমাদের রোগীদের প্রতি আমাদের প্রতিশ্রুতি পুনরুক্তি করি। হেলথ কানেক্ট ইন্টারন্যাশনালের সেন্টার হেড সানজিদা সায়েদ এবং জেনারেল ম্যানেজার জর্জ জোসেফ ব্যক্তিগত ভাবে প্রতিটা রোগী ও তাঁদের পরিবারের জন্য এই সেবা কার্যক্রম পরিচালনায় অংশ নিয়েছেন।

অ্যাপোলো হাসপাতাল আন্তর্জাতিক বিভাগের ভাইস চেয়ারম্যান জিতু জোসি বলেছেন, আমরা ফ্লাইট চালুর অপেক্ষায় আছি, এই জাতীয় সেবা সমূহ আরো ব্যাপক ভাবে আয়োজন করার জন্য। আমরা আরো প্রতিশ্রুতিবদ্ধ যে কোন ক্রান্তিকালীন সময়ে আমরা আমাদের রোগীদের সর্বাত্মক সহায়তা নিশ্চিত করবো।

এক নজরে অ্যাপোলো হাসপাতাল এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড (এএইচইএল) :

১৯৩০ সালে ডাঃ প্রতাপ রেড্ডি ভারতের প্রথম কর্পোরেট হাসপাতাল -চেন্নাইয়ের অ্যাপোলো হাসপাতাল চালু করে চিকিৎসা সেবার এক যুগান্তকারী দিক উন্মোচন করেন। এটি এখন এশিয়ার বৃহত্তম এবং সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য স্বাস্থ্য সেবা গ্রুফ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত ।

বর্তমানে এর ৭৩টি পূর্ণাঙ্গ হাসপাতাল জুড়ে ১০০০০ শয্যা, ২৫০০ ফার্মেসী,১২০+ প্রাথমিক সেবা ও ডায়াগনষ্টিক ক্লিনিক। ১৫০ টি টেলিমেডিসিন সেন্টার ৯টি দেশ জুড়ে চিকিৎসা, ব্যবসা প্রক্রিয়ায় আউটসোর্সিং পরিষেবা, স্বাস্থ্য বীমা সেবা ,গ্লোবাল প্রজেক্ট কনসালটেন্সী । নার্সিং এন্ড হসপিটাল ম্যানেজমেন্টের ১৫ টি কলেজ এবং একটি গবেষণা ফাউন্ডেশন যা বিশ্বব্যাপী ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালস,এপিডেমিওলজিকাল স্টাডিজ, স্টেম সেল ও জেনেটিক গবেষণার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।

উল্লেখিত প্রতিষ্ঠান সমূহ বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সেবায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। ভারত সরকার স্বাস্থ্য সেবা সংস্থার পক্ষে প্রথম অ্যাপোলোর অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ একটি স্মারক ডাকটিকিট জারি করে, যা বিরল সম্মানের ।

অ্যাপোলো হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডাঃ প্রতাপ সি রেড্ডিকে ২০১০ সালে সু-উচ্চ মর্যাদাপূর্ণ পদ্মবিভূষণ পদকে ভূষিত করা হয়। ৩৫ বছরের বেশি সময় ধরে অ্যাপোলো হাসপাতাল গ্রুফ চিকিৎসা উদ্ভাবন,বিশ্বমানের ক্লিনিক্যাল পরিষেবা,আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার ও সুদক্ষ ব্যাপস্থাপনায় নির্বিচ্ছন্নভাবে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট অক্ষুণ্ণ রেখেছে। আমাদের হাসপাতাল গুলো নিয়মিতভাবে উন্নত চিকিৎসা পরিষেবা এবং গবেষণার জন্য বিশ্বব্যাপী সেরা হাসপাতালের মধ্যে স্থান পেয়েছে ।